বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা: আজ দাখিল হতে পারে চার্জশিট

প্রকাশিত: ৩:০৫ পূর্বাহ্ন, নভেম্বর ১২, ২০১৯

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে দায়ের করা মামলার চার্জশিট আজ দাখিল করা হতে পারে। এতে ২৫ জনকে আসামি করা হচ্ছে। এদের মধ্যে এহাজারভুক্ত ১৯ জনের সবাইকে আসামি করা হচ্ছে।

এজাহারের বাইরে আরও ছয়জনকে আসামি করা হচ্ছে। ছয়জনের মধ্য থেকে পাঁচজনকে এরই মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর এজাহারভুক্তদের মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে ১৬ জনকে। সব মিলিয়ে ২১ জন কারাগারে আছেন। চার্জশিটে ২১ জনের সবাইকেই আসামি করা হচ্ছে।
এর বাইরে চার্জশিটে পলাতক আসামি হিসেবে চারজনের নাম উল্লেখ করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে তিনজনের নাম এজাহারে আছে। অপরজনের নাম তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র যুগান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, চার্জশিটে বাদীসহ ৩২ জনকে সাক্ষী হিসেবে উল্লেখ করা হচ্ছে। প্রস্তুতকৃত চার্জশিট এরই মধ্যে আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম অনুমোদন করেছেন।

কোনো ধরনের ভুলভ্রান্তি যেন না থাকে, সেজন্য সোমবার বিকালে চার্জশিট অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে দেখিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওয়াহিদুজ্জামান। চার্জশিট দেখার পর তিনি মতামত জানিয়েছেন। তার মতামত অনুযায়ী সোমবার চার্জশিট সংশোধন করা হয়।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম সোমবার বিকালে যুগান্তরকে বলেন, আবরার হত্যা মামলার চার্জশিট মঙ্গলবার (আজ) আদালতে দাখিল করতে চাই। এ লক্ষ্যেই আমাদের কার্যক্রম চলছে।

মামলায় যাদের আসামি করা হচ্ছে, তাদের মধ্যে ৮ জন এরই মধ্যে আদালতে দণ্ডবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ১৩ জন ১৬১ ধারায় পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

তিনি জানান, সাক্ষীদের মধ্য থেকে দুই জন ১৬৪ ধারায় এবং ৩০ জন ১৬১ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। সাক্ষীদের মধ্যে বুয়েটের শিক্ষক, শেরেবাংলা হলের প্রভোস্ট, চিকিৎসক এবং নিরাপত্তাকর্মীও আছেন।

ডিবির সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, আবরারের রক্তমাখা জামাকাপড়, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন, ফরেনসিক প্রতিবেদন, ১৬৪ ও ১৬১ ধারায় দেয়া আসামিদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি, সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপের কথোপথন, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ, আসামিদের কল রেকর্ড ও মশারি টানানোর রড-স্টাম্প আলমত হিসেবে আদালতে উপস্থাপন করা হচ্ছে।

ডিবি সূত্র জানায়, চার্জশিটে যাদের আসামি করা হচ্ছে, তাদের মধ্যে ২৪ জনের নাম জানা গেছে।

তারা হলেন- মেহেদী হাসান রাসেল, মুহতাসিম ফুয়াদ, অনিক সরকার, মেহেদী হাসান রবিন, ইফতি মোশারফ সকাল, মনিরুজ্জামান মনির, মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, মাজেদুল ইসলাম, মোজাহিদুল ওরফে মোজাহিদুর রহমান, তানভীর আহম্মেদ, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, জিসান, আকাশ হোসেন, শামীম বিল্লাহ, এসএম নাজমুস সাদাত, এহতেশামুল রাব্বি তানিম, মোর্শেদ, মোয়াজ, মুনতাসির আল জেমি, অমিত সাহা, মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, ইশতিয়াক আহমেদ মুন্না, এসএম মাহমুদ সেতু।

এদের মধ্যে শেষের ৫ জনের নাম এজাহারে উল্লেখ ছিল না। এর বাইরে হত্যাকাণ্ডে আরও একজনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। চার্জশিট দাখিলের আগে ওই নামটি জানাতে রাজি হননি তদন্তসংশ্লিষ্টরা। চার্জশিটে যে চারজনকে পলাতক দেখানো হচ্ছে তাদের মধ্যে আছেন জিসান, মোর্শেদ ও তানিম।

আসামিদের অন্তত ১১ জন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পদে ছিলেন। অন্য আসামিরাও ছাত্রলীগের কর্মী বা সমর্থক ছিলেন। আবরার হত্যাকাণ্ডের পর ছাত্রলীগ থেকে পদধারীদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়।

বুয়েটে ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা জাবনবন্দিতে জানিয়েছে, ইসলামী ছাত্রশিবির সন্দেহে ৬ অক্টোবর রাতে শেরেবাংলা হলে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

ডিবির সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, চার্জশিটে আসামিদের কোনো রাজনৈতিক পরিচয় উল্লেখ করা হচ্ছে না। তাদের নামের সঙ্গে স্থায়ী ও বর্তমান ঠিকানা উল্লেখ করা হচ্ছে। তিনি জানান, চাঞ্চল্যকর এ মামলাটি রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত হয়ে তদন্ত করেছেন গোয়েন্দারা। চার্জশিটেও এর প্রতিফলন থাকছে।