এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনায় ১৫ জনকে আসামি করে মামলা

নিউজ নিউজ

ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:২৬ অপরাহ্ন, নভেম্বর ১০, ২০২০
এএসপি আনিসুল করিম

চিকিৎসা নিতে গিয়ে রাজধানীর আদাবরে মাইন্ড এইড হাসপাতালে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনায় আদাবর থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) আনিসুল করিমের বাবা বাদী হয়ে ১৫ জনকে আসামি করে এ মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর ৯।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদাবর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহিদু্জ্জামান।

এদিকে এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যুর ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-প্রমাণ পেয়েছে পুলিশ। এ বিষয়ে দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হবে।

তেজগাঁও পুলিশ এক ক্ষুদেবার্তায় জানিয়েছে, দুপুর ১২টায় শ্যামলীতে উপপুলিশ কমিশনারের (তেজগাঁও বিভাগ) কার্যালয়ে এএসপি আনিসুল করিম হত্যাকাণ্ড বিষয়ে ব্রিফ করবেন উপপুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

এএসপি আনিসুল করিম সর্বশেষ ট্রাফিকের সিনিয়র এসি (সহকারী কমিশনার) হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন।

সোমবার দুপুর পৌনে ১২টায় মানসিক সমস্যার কারণে হাসপাতালে আসেন এএসপি আনিসুল করিম। অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতালটিতে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই মারা যান তিনি। হাসপাতালের অ্যাগ্রেসিভ ম্যানেজমেন্ট রুমে তাকে মারধরের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

দীর্ঘক্ষণ অচেতন থাকা অবস্থায়ও তাকে ভর্তি কার্যক্রম করা হয়নি। কিছুক্ষণ পর ১২টার দিকে তাকে হাসপাতালের লোকজন জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান হাসপাতালে নেয়ার আগেই মৃত্যু (ব্রট ডেথ) হয় আনিসুলের।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, প্রাথমিকভাবে আমরা ধারণা করছি, হাসপাতালের স্টাফদের ধস্তাধস্তির এক পর‌্যায় এএসপি আনিসুল করিমের মৃত্যু হতে পারে। তবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে না পেয়ে নির্দিষ্ট করে কিছুই বলা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়াও হাসপাতালের স্টাফসহ ৬/৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

রাজধানীর আদাবরে মাইন্ড এইড হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার ওই কক্ষের প্রবেশের আগে থেকে এএসপিকে টেনেহিঁচড়ে আনার চিত্র স্পষ্ট দেখা য়ায়। ওই কক্ষের সিসিটিভি ক্যামেরার ১৩ মিনিটের ফুটেজে দেখা যায়, ধস্তাধস্তির সময় একটি কাপড় নিয়ে লাল রঙের গেঞ্জি পড়া হাসপাতালের একজন স্টাফ এগিয়ে যাচ্ছিলো। কক্ষের বাইরে থেকে এএসপি আনিসুল করিমকে টেনেহিঁচড়ে প্রথমে চারজন কক্ষের ভেতরে নিয়ে যায়। তাকে মেঝেতে উপুর করে ফেলে চেপে ধরে রাখা হয়। এরপর নীল রঙের পোষাক পড়া দুইজন স্টাফ কক্ষে ঢোকে। তারা দ্রুত আনিসুলের দুই পা জোড় দিয়ে চেপে ধরেন। এসময় আরও দুইজন কক্ষের ভেতরে প্রবেশ করে। তখন এএসপির দুই হাত বাধার চেষ্টায় ধস্তাধস্তি চলছিলে।

মেঝেতে চেপে ধরে রাখা আনিসুলের মাথার ডান পাশে থাকা একজন স্টাফ প্রথমে তার ঘাড়ে আঘাত করে। এরপর বাম পাশ থেকে অপর একজন স্টাফ হাতের কুনই দিয়ে তার ঘাড়ের দুই পাশে পরপর দুইবার জোড়ে আঘাত করে। স্টাফরা তার দুই হাত ও বাহু লম্বা কাপড় দিয়ে পেছন থেকে বাঁধছিলেন। ছয় স্টাফদের মধ্যে সাদা গেঞ্জি পড়া একজন আনিসুলের ওপরে চেপে বসেছিল। ধস্তাধস্তির এই সময় ওই কক্ষের ভেতরে হাসপাতালের ম্যানেজার (এ্যাডমিশন/ভর্তি) আরিফ মাহমুদ জয় দাঁড়িয়ে পুরো বিষয়টি দেখছিলেন। তখন কক্ষের ভেতরে হাসপাতালের স্টাফসহ নয় জন উপস্থিত ছিলেন। এসময় তার নড়াচড়া কমতে থাকে। চার মিনিট পর দুই হাত পেছন থেকে বাঁধা অবস্থায় পাঁচজন স্টাফ মিলে আনিসুলকে ঘুরিয়ে সোজা করে মেঝেতে রাখেন। তাকে টেনে লম্বা করে শোয়ায় তারা। কিছুক্ষণ পর ম্যানেজার (এ্যাডমিশন/ভর্তি) আরিফ মাহমুদ জয় কক্ষ থেকে বের হয়ে যান।

সিসিটিভি ফুটেজে আরো দেখা যায়, নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকা এএসপি আনিসুল করিমের চোখে ও মুখে পানির ঝাপটা দিচ্ছিলেন লাল গেঞ্জি পড়া একজন স্টাফ। এতেও নড়ছিলেন না আনিসুল। তখন স্টাফদের সবাই কক্ষের ভেতরে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাদের মধ্যে মেরুন (খয়েরি) রঙের শার্ট পড়া একজন স্টাফ নিজের হাতের কনুই নেড়ে মারধরের বিষয়টি দেখাচ্ছিলেন। অবশ্য তখন তার মুখে হাসি ছিল। অপর এক স্টাফ একটি বালতিতে করে পানি নিয়ে কক্ষে প্রবেশ করেন। তার হাত থেকে সবুজ শার্ট পর অপর স্টাফ কক্ষের মেঝেতে পানি ঢেলে দেন এবং ঘর মোছার মগ দিয়ে পরিষ্কার করছিলেন।

এসময় সাদা অ্যাপ্রোন পড়া একজন নারী চিকিৎসক কক্ষে আসেন। সেখানে দাঁড়িয়ে থেকে উকিঝুঁকি দিয়ে দেখছিলেন। তখন আরো একজন নারী চিকিৎসক ওই কক্ষে প্রবেশ করেন। দুইজনকে মিলে নিস্তেজ পড়ে থাকা এএসপি আনিসুলের ব্ল্যাড প্রেশার ও পালস চেক করেন। বারবার তার বুকে পাম্প করা হয়। তখন আরিফ মাহমুদ জয় ওই কক্ষে প্রবেশ করেন। এরপর ঘটনার ১১ মিনিটের মাথায় তিনি একজন স্টাফকে দরজা বন্ধ করার নির্দেশ দেন। তখন বন্ধ কক্ষে ছিলেন, দুই নারী চিকিৎসক, তিনজন স্টাফ ও হাসপাতালর ম্যানেজার আরিফ মাহমুদ জয়। রোগী (এএসপি আনিসুল করিম) জীবিত নেই বোঝার পর আরিফ মাহমুদ জয়ের মধ্যে অস্থিরতা বাড়তে থাকে। তিনি পকেট থেকে মোবাইল ফোন বের করে কল করছিলেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হাসপাতালের স্টাফরা জানায়, হাসপাতালে এএসপি উত্তেজিত হয়ে আরিফ মাহমুদ জয়কে মারেন। আরিফ মাহমুদের নির্দেশে আনিসুলকে জোরপূর্বক ধরে এবং ধস্তাধস্তির মাধ্যমে ওই কক্ষে নিয়ে যায় হাসপাতালের স্টাফরা।

আদাবর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. ফারুক মোল্লা বলেন, হাসপাতালে যে কক্ষে এই ঘটনাটি ঘটেছে সেখানে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। সেটি বর্তমানে পর‌্যালোচনা করে দেখা হচ্ছে। সেই সঙ্গে ঘটনার বিষয়ে হাসপাতালের ৬/৭ জন স্টাফদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

আনিসুল করিম ৩১তম বিসিএসে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান। সর্বশেষ তিনি বরিশাল মহানগর পুলিশে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়ায়। তিনি এক সন্তানের জনক। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের ৩৩ ব্যাচের ছাত্র ছিলেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

নিউজ সোর্স: PPBD

ছবি সোর্স: গুগল