ঢাকা ০৯:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৯ জুন ২০২৪, ২৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেঘনার অভ্যন্তরীণ রাস্তার দেখভালের অভাবে বেহাল দশা ।

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ১০:২২:৫৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০১৯ ১৬৮ বার পড়া হয়েছে

১ জুন ২০১৯ ,বিন্দুবাংলা টিভি .কম , স্টাফ রিপোর্টার , মেঘনা থেকে ফিরে  : কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার অভ্যন্তরীণ রাস্তাগুলো দেখভালের অভাবে বেহাল দশা সৃষ্টি হয়েছে। জেলার নিম্নাঞ্চল উপজেলা ,ঢাকা থেকে অদূরে ছোট একটি উপজেলা মেঘনা । ঢাকা – চট্রগ্রাম মহাসড়ক ভাটের চর থেকে বি আর টিসি মোড় পর্যন্ত সংযোগ সড়ক, রামপুর বাজার – মুক্তিনগর বাজার ,আলিপুর ঘাট থেকে চন্দনপুর ,মুক্তিনগর বাজার থেকে হোমনা – গৌরিপুর আঞ্চলিক সড়ক ছিনাই নামক স্থানে  সহ উপজেলার প্রতিটি সড়কের এখন করুন দশা ।      সংস্কার কাজ এখনো চলছে কিন্তু রাস্তা জমি থেকে অনেক উচু হওয়া  বালু মাটি   দিয়ে তৈরি রাস্তা ফলে বৃষ্টি হলেই রাস্তার ঢালে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়। সে ভাঙ্গনকৃত রাস্তা গুলো সাথে সাথে মেরামত  না করা ভাঙ্গনের গর্ত আস্তে আস্তে এমন হয় যা রাস্তা টি চলাচলের অযোগ্য হয়ে যায়। ফলে জনসাধারণের ভোগান্তির শেষ নেই ,সরকারের কোটি কোটি টাকা অবকাঠামো উন্নয়ন করতে ব্যয় করলেও তদারকির অভাবে সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে অন্য দিকে হাজার হাজার কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে । উপজেলার ছোট ,বড় কাচা, পাকা     সব সড়কের অবস্থাই এখন নাজুক । কিছু রাস্তা আছে যে গুলো মাত্র কাজ শেষ করেছে কিন্তু বৃষ্টি ও কাজের মান নিম্ন হওয়ার ফলে যদি তদারকির মধ্যে,না রাখা হয় সে গুলো ও চলাচলের অযোগ্য হয়ে যাবে। স্থানীয় প্রশাসন যদি মেরামত প্রক্রিয়া চলমান রাখে তা হলে প্রতিটি রাস্তাই অনেক টেকসই হবে ।জন দূর্ভোগ কম হবে। সরকারের অর্থ অপচয়ের পাশাপাশি অবকাঠামো উন্নয়নের সুনাম অক্ষুণ্ন থাকবে ।সম্প্রতি ফেসবুকের লাইভে এই সব চিত্র তুলে উঠায় তদারকির অভাবে জনভোগান্তির শেষ চায় জনগন। অনেক জনপ্রতিনিধি , জনসাধারণের বক্তব্য যে কোন কাজ তাদারকি না থাকলে তা নষ্ট হয়ে ব্যবহার অনুপযোগী হবেই তাই  কর্তৃপক্ষকে  অবস্থা বেধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

মেঘনার অভ্যন্তরীণ রাস্তার দেখভালের অভাবে বেহাল দশা ।

আপডেট সময় : ১০:২২:৫৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ জুন ২০১৯

১ জুন ২০১৯ ,বিন্দুবাংলা টিভি .কম , স্টাফ রিপোর্টার , মেঘনা থেকে ফিরে  : কুমিল্লার মেঘনা উপজেলার অভ্যন্তরীণ রাস্তাগুলো দেখভালের অভাবে বেহাল দশা সৃষ্টি হয়েছে। জেলার নিম্নাঞ্চল উপজেলা ,ঢাকা থেকে অদূরে ছোট একটি উপজেলা মেঘনা । ঢাকা – চট্রগ্রাম মহাসড়ক ভাটের চর থেকে বি আর টিসি মোড় পর্যন্ত সংযোগ সড়ক, রামপুর বাজার – মুক্তিনগর বাজার ,আলিপুর ঘাট থেকে চন্দনপুর ,মুক্তিনগর বাজার থেকে হোমনা – গৌরিপুর আঞ্চলিক সড়ক ছিনাই নামক স্থানে  সহ উপজেলার প্রতিটি সড়কের এখন করুন দশা ।      সংস্কার কাজ এখনো চলছে কিন্তু রাস্তা জমি থেকে অনেক উচু হওয়া  বালু মাটি   দিয়ে তৈরি রাস্তা ফলে বৃষ্টি হলেই রাস্তার ঢালে ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়। সে ভাঙ্গনকৃত রাস্তা গুলো সাথে সাথে মেরামত  না করা ভাঙ্গনের গর্ত আস্তে আস্তে এমন হয় যা রাস্তা টি চলাচলের অযোগ্য হয়ে যায়। ফলে জনসাধারণের ভোগান্তির শেষ নেই ,সরকারের কোটি কোটি টাকা অবকাঠামো উন্নয়ন করতে ব্যয় করলেও তদারকির অভাবে সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে অন্য দিকে হাজার হাজার কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে । উপজেলার ছোট ,বড় কাচা, পাকা     সব সড়কের অবস্থাই এখন নাজুক । কিছু রাস্তা আছে যে গুলো মাত্র কাজ শেষ করেছে কিন্তু বৃষ্টি ও কাজের মান নিম্ন হওয়ার ফলে যদি তদারকির মধ্যে,না রাখা হয় সে গুলো ও চলাচলের অযোগ্য হয়ে যাবে। স্থানীয় প্রশাসন যদি মেরামত প্রক্রিয়া চলমান রাখে তা হলে প্রতিটি রাস্তাই অনেক টেকসই হবে ।জন দূর্ভোগ কম হবে। সরকারের অর্থ অপচয়ের পাশাপাশি অবকাঠামো উন্নয়নের সুনাম অক্ষুণ্ন থাকবে ।সম্প্রতি ফেসবুকের লাইভে এই সব চিত্র তুলে উঠায় তদারকির অভাবে জনভোগান্তির শেষ চায় জনগন। অনেক জনপ্রতিনিধি , জনসাধারণের বক্তব্য যে কোন কাজ তাদারকি না থাকলে তা নষ্ট হয়ে ব্যবহার অনুপযোগী হবেই তাই  কর্তৃপক্ষকে  অবস্থা বেধে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করছি।