ঢাকা ০১:১৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এক নারীর গর্ভের সন্তানের পিতৃত্ব দাবী দুই যুবকের।

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০১:৪৪:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০১৯ ১৬৯ বার পড়া হয়েছে

১০ জুন ২০১৯, বিন্দুবাংলা টিভি .কম ,ডেস্ক রিপোর্ট :   ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক নারীর গর্ভের সন্তানের পিতৃত্ব দাবি করেছেন দুই যুবক। এই নিয়ে কয়েক দফায় সালিশ করেও কোন সমাধান করতে পারেনি গ্রাম্য মাতবররা।
জানা গেছে, উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের গোয়ালদি গ্রামের আলমগীর কাজির মেয়ে নাজমা বেগমের সঙ্গে প্রায় ১০ বছর আগে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি উপজেলার জুনাসুর গ্রামের বাদশা লস্করের ছেলে ছাবু লস্করের বিয়ে হয়। পরে নাজমা বেগম ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট ছাবুকে তালাক দেন। পরে নিজের গ্রামের লাল মোল্লার ছেলে হেলাল মোল্লার সঙ্গে  প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে নাজমার। এরপর ২০১৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর হেলালের সঙ্গে নাজমার বিয়ে হয়। পরে চলতি বছরের ১ মার্চ নাজমা হেলালকে তালাক দিয়ে পূর্বের স্বামী ছাবুর সঙ্গে সংসার শুরু করেন। এরই মাঝে নাজমা সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়েন। বর্তমানে হেলালের দাবি এই সন্তান তার, অন্যদিকে এই সন্তান নিজের বলে দাবি করেন ছাবুও।
হেলাল নাজমার গর্ভের সন্তানকে নিজের দাবি করে বলেন, এই সন্তান আমার।  অন্যদিকে গর্ভের সন্তান নিজের দাবি করে ছাবু বলেন, হেলাল আমার সঙ্গে যুদ্ধ শুরু করেছে। সেজন্য নাজমাকে দিয়ে হেলালের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করিয়েছি।তবে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি নাজমা।এ বিষয়ে পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সোবহান মিয়া বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় মিমাংসার চেষ্টা চলছে। শিগগিরই বিষয়টি মিমাংসা করে দিব।

সূএঃ সমকাল।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

এক নারীর গর্ভের সন্তানের পিতৃত্ব দাবী দুই যুবকের।

আপডেট সময় : ০১:৪৪:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০১৯

১০ জুন ২০১৯, বিন্দুবাংলা টিভি .কম ,ডেস্ক রিপোর্ট :   ফরিদপুরের নগরকান্দায় এক নারীর গর্ভের সন্তানের পিতৃত্ব দাবি করেছেন দুই যুবক। এই নিয়ে কয়েক দফায় সালিশ করেও কোন সমাধান করতে পারেনি গ্রাম্য মাতবররা।
জানা গেছে, উপজেলার পুরাপাড়া ইউনিয়নের গোয়ালদি গ্রামের আলমগীর কাজির মেয়ে নাজমা বেগমের সঙ্গে প্রায় ১০ বছর আগে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি উপজেলার জুনাসুর গ্রামের বাদশা লস্করের ছেলে ছাবু লস্করের বিয়ে হয়। পরে নাজমা বেগম ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট ছাবুকে তালাক দেন। পরে নিজের গ্রামের লাল মোল্লার ছেলে হেলাল মোল্লার সঙ্গে  প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে নাজমার। এরপর ২০১৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর হেলালের সঙ্গে নাজমার বিয়ে হয়। পরে চলতি বছরের ১ মার্চ নাজমা হেলালকে তালাক দিয়ে পূর্বের স্বামী ছাবুর সঙ্গে সংসার শুরু করেন। এরই মাঝে নাজমা সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়েন। বর্তমানে হেলালের দাবি এই সন্তান তার, অন্যদিকে এই সন্তান নিজের বলে দাবি করেন ছাবুও।
হেলাল নাজমার গর্ভের সন্তানকে নিজের দাবি করে বলেন, এই সন্তান আমার।  অন্যদিকে গর্ভের সন্তান নিজের দাবি করে ছাবু বলেন, হেলাল আমার সঙ্গে যুদ্ধ শুরু করেছে। সেজন্য নাজমাকে দিয়ে হেলালের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা করিয়েছি।তবে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি নাজমা।এ বিষয়ে পুরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সোবহান মিয়া বলেন, বিষয়টি নিয়ে এলাকায় মিমাংসার চেষ্টা চলছে। শিগগিরই বিষয়টি মিমাংসা করে দিব।

সূএঃ সমকাল।