ঢাকা ০৩:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত হত্যামামলায় প্রথম শুনানীতে খালাস পেল রাফি’র ৫ সহপাঠী।

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৩:৩৪:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০১৯ ৩৪২ বার পড়া হয়েছে

১১ জুন ২০১৯, বিন্দুবাংলা টিভি .কম,

সৈয়দ কামাল,ফেনী থেকেঃফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার শুনানির প্রথম দিনে তার পাঁচ সহপাঠীকে খালাস দিয়েছেন আদালত। সোমবার ১০ জুন দুপুরে নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিচারিক আদালত ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ এ আদেশ দেন। নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে ঘটনার পর বিভিন্ন সময়ে তাদের গ্রেফতার করেছিল পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। তবে অভিযোগপত্রে (চার্জশিট) তাদের নাম উল্লেখ করা হয়নি।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ও শাহিদুল ইসলাম। এরা সবাই নুসরাতের সহপাঠী। জেলা জজ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের সরকারী কৌঁসুলি (এপিপি) অ্যাডভোকেট হাফেজ আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘তাদের নাম চার্জশিটে না থাকায় মামলা থেকে খালাস দিয়েছেন আদালত। এর আগে একই আদালত পিবিআই’র দাখিল করা ১৬ আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে দেওয়া চার্জশিট আমলে নেন। আগামী ২০ জুন চার্জ গঠনের দিন ধার্য করা করা হয়েছে।

এপিপি অ্যাডভোকেট হাফেজ আহমেদ আরও জানান, নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন,কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, প্রভাষক আবসার উদ্দিন,মো.শামিম,ইফতেখার উদ্দিন, নূর উদ্দিন জামিন চাইলে আদালত তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বিভিন্ন সময়ে এ মামলায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা,নূর উদ্দিন,শাহাদাত হোসেন শামীম, উম্মে সুলতানা পপি, কামরুন নাহার মনি,জাবেদ হোসেন, আবদুর রহিম ওরফে শরীফ, হাফেজ আবদুল কাদের ও জোবায়ের আহমেদ, এমরান হোসেন মামুন, ইফতেখার হোসেন রানা ও মহিউদ্দিন শাকিল আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত হত্যামামলায় প্রথম শুনানীতে খালাস পেল রাফি’র ৫ সহপাঠী।

আপডেট সময় : ০৩:৩৪:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০১৯

১১ জুন ২০১৯, বিন্দুবাংলা টিভি .কম,

সৈয়দ কামাল,ফেনী থেকেঃফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার শুনানির প্রথম দিনে তার পাঁচ সহপাঠীকে খালাস দিয়েছেন আদালত। সোমবার ১০ জুন দুপুরে নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিচারিক আদালত ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ এ আদেশ দেন। নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে ঘটনার পর বিভিন্ন সময়ে তাদের গ্রেফতার করেছিল পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। তবে অভিযোগপত্রে (চার্জশিট) তাদের নাম উল্লেখ করা হয়নি।

খালাসপ্রাপ্তরা হলেন আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ও শাহিদুল ইসলাম। এরা সবাই নুসরাতের সহপাঠী। জেলা জজ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের সরকারী কৌঁসুলি (এপিপি) অ্যাডভোকেট হাফেজ আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘তাদের নাম চার্জশিটে না থাকায় মামলা থেকে খালাস দিয়েছেন আদালত। এর আগে একই আদালত পিবিআই’র দাখিল করা ১৬ আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করে দেওয়া চার্জশিট আমলে নেন। আগামী ২০ জুন চার্জ গঠনের দিন ধার্য করা করা হয়েছে।

এপিপি অ্যাডভোকেট হাফেজ আহমেদ আরও জানান, নুসরাত হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন,কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, প্রভাষক আবসার উদ্দিন,মো.শামিম,ইফতেখার উদ্দিন, নূর উদ্দিন জামিন চাইলে আদালত তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বিভিন্ন সময়ে এ মামলায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা,নূর উদ্দিন,শাহাদাত হোসেন শামীম, উম্মে সুলতানা পপি, কামরুন নাহার মনি,জাবেদ হোসেন, আবদুর রহিম ওরফে শরীফ, হাফেজ আবদুল কাদের ও জোবায়ের আহমেদ, এমরান হোসেন মামুন, ইফতেখার হোসেন রানা ও মহিউদ্দিন শাকিল আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছিল।