ঢাকা ০২:২৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ০৮ জুন ২০২৪, ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পুলিশ সদস্যের আত্মহত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৯:৫৯:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০ ১৬৪ বার পড়া হয়েছে

২৩ জানুয়ারি ২০২,, আজকের মেঘনা ডটকম, ডেস্ক রিপোর্ট :

রাজধানীর মিরপুর পুলিশ লাইনে নিজের রাইফেল দিয়ে এক পুলিশ সদস্য আত্মহত্যা করেছেন। আত্মঘাতী আবদুল কুদ্দুস মিরপুর-১৪ নম্বর পুলিশ লাইনে নায়েক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আত্মহত্যার আগে এই পুলিশ সদস্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে জানিয়েছেন পারিবারিক অশান্তির কারণেই তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

জানা গেছে, আবদুল কুদ্দুস পারিবারিক সমস্যায় ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করব না। আমার ভেতনের যন্ত্রণাগুলো বড় হয়ে গেছে, আমি আর সহ্য করতে পারছি না। প্রাণটা পালাই পালাই করছেৃ।

তবে অবিবাহিতগণের প্রতি আমার আকুল আবেদন, আপনারা পাত্রী পছন্দ করার আগে পাত্রীর মা ভালো কী না তা আগে খবর নেবেন। কারণ পাত্রীর মা ভালো না হলে পাত্রী কখনোই ভালো হবে না। ফলে আপনার সংসারটা হবে দোজখের মত। সুতরাং সকল সম্মানিত অভিভাবকগণের প্রতি আমার শেষ অনুরোধ, বিষয়টি বিশেষভাবে গুরুত্ব দিবেন। আল্লাহ হাফেজ।

কাফরুল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাউদ্দিন মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘মৃত্যুর আগে ওই পুলিশ সদস্য ফেসবুকে লিখেছেন তার মৃত্যুর জন্য কেউই দায়ী নয়। আবার লেখার ভেতরে তার বউ শাশুড়ির নামে বিভিন্ন কথা লিখেছেন। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আত্মহত্যাকারী পুলিশ সদস্যের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পুলিশ সদস্যের আত্মহত্যা

আপডেট সময় : ০৯:৫৯:৫৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০

২৩ জানুয়ারি ২০২,, আজকের মেঘনা ডটকম, ডেস্ক রিপোর্ট :

রাজধানীর মিরপুর পুলিশ লাইনে নিজের রাইফেল দিয়ে এক পুলিশ সদস্য আত্মহত্যা করেছেন। আত্মঘাতী আবদুল কুদ্দুস মিরপুর-১৪ নম্বর পুলিশ লাইনে নায়েক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আত্মহত্যার আগে এই পুলিশ সদস্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে জানিয়েছেন পারিবারিক অশান্তির কারণেই তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

জানা গেছে, আবদুল কুদ্দুস পারিবারিক সমস্যায় ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করব না। আমার ভেতনের যন্ত্রণাগুলো বড় হয়ে গেছে, আমি আর সহ্য করতে পারছি না। প্রাণটা পালাই পালাই করছেৃ।

তবে অবিবাহিতগণের প্রতি আমার আকুল আবেদন, আপনারা পাত্রী পছন্দ করার আগে পাত্রীর মা ভালো কী না তা আগে খবর নেবেন। কারণ পাত্রীর মা ভালো না হলে পাত্রী কখনোই ভালো হবে না। ফলে আপনার সংসারটা হবে দোজখের মত। সুতরাং সকল সম্মানিত অভিভাবকগণের প্রতি আমার শেষ অনুরোধ, বিষয়টি বিশেষভাবে গুরুত্ব দিবেন। আল্লাহ হাফেজ।

কাফরুল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাউদ্দিন মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘মৃত্যুর আগে ওই পুলিশ সদস্য ফেসবুকে লিখেছেন তার মৃত্যুর জন্য কেউই দায়ী নয়। আবার লেখার ভেতরে তার বউ শাশুড়ির নামে বিভিন্ন কথা লিখেছেন। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।

পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আত্মহত্যাকারী পুলিশ সদস্যের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।