ঢাকা ০১:৩৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪, ২৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত‌্যুদণ্ড: বিল সংসদে

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৮:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ নভেম্বর ২০২০ ১৫৩ বার পড়া হয়েছে

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে  ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) বিল-২০২০’ উত্থাপন করা হয়েছে। রোববার (০৮ নভেম্বর) জাতীয় সংসদে এই বিল উত্থাপন করেন  মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেসা।  এরপর বিল পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে এক সপ্তাহের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

বিল উত্থাপনের আগে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০২০’ সংসদে উত্থাপন করেন। ওই অধ্যাদেশের আলোকে সংসদে সংশোধনী বিলটি আনা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ অক্টোবর ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধিত) আইন, ২০২০’-এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।

এর আগে, গত ১২ অক্টোবর মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হওয়ার পর ১৩ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০২০’ জারি করেন।

নতুন  সংশোধিত আইনের ৯ (১) উপধারায় ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলোর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলো প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

আইনের ৯(৪)(ক) উপধারায় ছিল, ‘যদি কোনো ব্যক্তি কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহলে ওই ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। পাশাপাশি অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।

সংশোধিত আইনে ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে’-এর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত‌্যুদণ্ড: বিল সংসদে

আপডেট সময় : ০৩:৪৮:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৮ নভেম্বর ২০২০

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে  ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) বিল-২০২০’ উত্থাপন করা হয়েছে। রোববার (০৮ নভেম্বর) জাতীয় সংসদে এই বিল উত্থাপন করেন  মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বেগম ফজিলাতুন নেসা।  এরপর বিল পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে এক সপ্তাহের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

বিল উত্থাপনের আগে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০২০’ সংসদে উত্থাপন করেন। ওই অধ্যাদেশের আলোকে সংসদে সংশোধনী বিলটি আনা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ অক্টোবর ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধিত) আইন, ২০২০’-এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।

এর আগে, গত ১২ অক্টোবর মন্ত্রিসভায় অনুমোদন হওয়ার পর ১৩ অক্টোবর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০২০’ জারি করেন।

নতুন  সংশোধিত আইনের ৯ (১) উপধারায় ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলোর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলো প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

আইনের ৯(৪)(ক) উপধারায় ছিল, ‘যদি কোনো ব্যক্তি কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহলে ওই ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। পাশাপাশি অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।

সংশোধিত আইনে ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে’-এর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ করা হয়েছে।