ঢাকা ১২:২০ অপরাহ্ন, শনিবার, ০৮ জুন ২০২৪, ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বন্ধুকে হত্যার পর মুক্তিপণ নিতে এসে যুবক ধরা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০২:১০:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০ ১৪৫ বার পড়া হয়েছে

৩০ নভেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

ঢাকার নবাবগঞ্জে নিখোঁজের ১৫ দিন পর পুকুর থেকে এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বিকাশের মাধ্যমে দোকান থেকে মুক্তিপণের টাকা নিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে নিহতের এক বন্ধু।

গ্রেপ্তার শাওন মোল্লা (২০) নবাবগঞ্জ উপজেলার আরঘোষাইল গ্রামের সাইদুল মোল্লার ছেলে।

আরঘোষাইলের পরিত্যক্ত পুকুর থেকে শনিবার (২৮ নভেম্বর) মধ্যরাতে মো. হৃদয় হোসেনের (১৭) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সে ওই গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী নজরুল ইসলামের ছেলে এবং শিকারীপাড়া তোফাজ্জল হোসেন ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র।

মামলার এজাহার অনুযায়ী, ১৪ নভেম্বর বিকালে হৃদয় ঘুরতে যাওয়ায় কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও ছেলেকে না পেয়ে ১৭ নভেম্বর থানায় জিডি করেন তার মা ময়না বেগম।

তার কাছে ২২ নভেম্বর হৃদয়ের মোবাইল নম্বর থেকে অজ্ঞাত একজন ফোন করে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ চায় এবং টাকা না দিলে ও বিষয়টি কাউকে জানালে হৃদয়কে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

হৃদয়ের মা অপহরণকারীদের প্রথমে ১০ হাজার টাকা বিকাশ করে। অপহরণকারীরা ২৭ নভেম্বর পুনরায় বিকাশে টাকা পাঠাতে বললে তিনি বিষয়টি পুলিশকে জানান। তারা বিকাশ নম্বরটি শনাক্ত করে ওই দিন সন্ধ্যায় স্থানীয় বারুয়াখালী বাজারের এক দোকান থেকে টাকা নিতে আসা শাওনকে আটক করে। পরে তার দেয়া তথ্যমতে শনিবার রাতে পরিত্যক্ত পুকুরের কচুরিপানার নিচ থেকে হৃদয়ের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় রোববার মামলা করেন নিহতের মা ময়না বেগম।

নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম শেখ বলেন, শাওনকে হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তিন দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটর্ফোড) হাসপতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

বন্ধুকে হত্যার পর মুক্তিপণ নিতে এসে যুবক ধরা

আপডেট সময় : ০২:১০:০৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০

৩০ নভেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

ঢাকার নবাবগঞ্জে নিখোঁজের ১৫ দিন পর পুকুর থেকে এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বিকাশের মাধ্যমে দোকান থেকে মুক্তিপণের টাকা নিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে নিহতের এক বন্ধু।

গ্রেপ্তার শাওন মোল্লা (২০) নবাবগঞ্জ উপজেলার আরঘোষাইল গ্রামের সাইদুল মোল্লার ছেলে।

আরঘোষাইলের পরিত্যক্ত পুকুর থেকে শনিবার (২৮ নভেম্বর) মধ্যরাতে মো. হৃদয় হোসেনের (১৭) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সে ওই গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী নজরুল ইসলামের ছেলে এবং শিকারীপাড়া তোফাজ্জল হোসেন ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র।

মামলার এজাহার অনুযায়ী, ১৪ নভেম্বর বিকালে হৃদয় ঘুরতে যাওয়ায় কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরেনি। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও ছেলেকে না পেয়ে ১৭ নভেম্বর থানায় জিডি করেন তার মা ময়না বেগম।

তার কাছে ২২ নভেম্বর হৃদয়ের মোবাইল নম্বর থেকে অজ্ঞাত একজন ফোন করে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ চায় এবং টাকা না দিলে ও বিষয়টি কাউকে জানালে হৃদয়কে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

হৃদয়ের মা অপহরণকারীদের প্রথমে ১০ হাজার টাকা বিকাশ করে। অপহরণকারীরা ২৭ নভেম্বর পুনরায় বিকাশে টাকা পাঠাতে বললে তিনি বিষয়টি পুলিশকে জানান। তারা বিকাশ নম্বরটি শনাক্ত করে ওই দিন সন্ধ্যায় স্থানীয় বারুয়াখালী বাজারের এক দোকান থেকে টাকা নিতে আসা শাওনকে আটক করে। পরে তার দেয়া তথ্যমতে শনিবার রাতে পরিত্যক্ত পুকুরের কচুরিপানার নিচ থেকে হৃদয়ের গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় রোববার মামলা করেন নিহতের মা ময়না বেগম।

নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম শেখ বলেন, শাওনকে হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তিন দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটর্ফোড) হাসপতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।