ঢাকা ০৯:২৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষায় ৯শ যানবাহন, ভোগান্তি

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০১:৪০:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২০ ১৩৩ বার পড়া হয়েছে

৯ ডিসেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, মানিকগঞ্জ সংবাদদাতা:

১২ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় প্রায় ৯শ যানবাহন পারের অপেক্ষায় রয়েছে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পরেছেন সাধারণ যাত্রীরা।

বুধবার (৯ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিষয়টি জানিয়েছেন শিবালয় থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) আশীষ স্যানাল।

পুলিশ পরিদর্শক জানান, মঙ্গলবার রাত ৯:৪৫ মিনিট থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। ১২ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় রাত থেকে যানবাহনের সারি দীর্ঘ হতে থাকে। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে কুয়াশার ঘনত্ব কেটে যাওয়ায় এ নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। তবে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ছয়শো যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে।এদিকে, উথুলী সংযোগ সড়ক এলাকায় তিনশো সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাক পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে। এর ফলে ঘাট এলাকায় আগত এসব যানবাহনের যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের ভোগান্তি বেড়েছে।

ঘটে অপেক্ষারত গোল্ডেন লাইন পরিবহনের যাত্রী সুকতার মিয়া বলেন, ‘রাত ১টা থেকে ঘাট এলাকায় আছি। ঘন কুয়াশার কারনে ফেরি বন্ধ থাকায় পার হতে পারিনি। এতো লম্বা সময় গাড়িতে বসে থেকে নাজুক অবস্থা এখন।’

খুলনাগামী যাত্রী তসলিমা আক্তার বলেন, ‘ঘাট এলাকায় পর্যাপ্ত টয়লেটের ব্যবস্থা নেই। ফলে নারী যাত্রীরা বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন।’

তকবির হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘তিনদিনের ছুটিতে বাড়ি যাচ্ছি। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় সকাল ১০টা পর্যন্ত ১১ ঘণ্টা যাবত বসে আছি। এখনো বাস ফেরিতে উঠতে পারেনি। কখন বাস ফেরিতে উঠবে, কখন নৌরুট পার হবো আর কখন বাড়ি যাবো। তিন ছুটির একদিন তো পাটুরিয়া ঘাটেই শেষ।’

বিল্লাল হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘শীতের মৌসুমে কুয়াশা হবে এটাই স্বাভাবিক। ঘাট কর্তৃপক্ষের যথাযথ পদক্ষেপ না থাকায় আমাদের ভোগান্তি বাড়ছে।’

যশোরগামী ট্রাক চালক ইকবাল হোসেন বলেন, ‘এমনিতেই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরিবহন বাস ও ছোট গাড়ি আগে পার করা হয়। ফেরি বন্ধ থাকায় যানবাহনের সারি দীর্ঘ হচ্ছে। ফেরি পারাপার চালু হলেও সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো পরে পার করা হবে। এতে করে ট্রাক চালকদের আরও ভোগান্তি বাড়বে।’

পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) আশীষ স্যানাল জানান, ঘাট এলাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ এড়াতে ৭ কিলোমিটার আগে উথুলী সংযোগ সড়কে সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাক দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ কমলে সিরিয়াল অনুযায়ী এসব ট্রাক ছাড়া হবে। উথুলী সংযোগ সড়ক থেকে আরিচা ঘাট পর্যন্ত তিনশোর মতো ট্রাক পাটুরিয়া ঘাটে প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ নৌ-পরিবহন করপোরেশন ( বিআইডব্লিটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক ( বাণিজ্য) মো. সালাম জানান, ঘন কুয়াশায় মার্কি বাতির অস্পষ্টতার কারণে পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হলেও পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ছয়শো যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির চাপ কমে যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষায় ৯শ যানবাহন, ভোগান্তি

আপডেট সময় : ০১:৪০:৫৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২০

৯ ডিসেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, মানিকগঞ্জ সংবাদদাতা:

১২ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় প্রায় ৯শ যানবাহন পারের অপেক্ষায় রয়েছে। এর ফলে চরম ভোগান্তিতে পরেছেন সাধারণ যাত্রীরা।

বুধবার (৯ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিষয়টি জানিয়েছেন শিবালয় থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) আশীষ স্যানাল।

পুলিশ পরিদর্শক জানান, মঙ্গলবার রাত ৯:৪৫ মিনিট থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। ১২ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় রাত থেকে যানবাহনের সারি দীর্ঘ হতে থাকে। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে কুয়াশার ঘনত্ব কেটে যাওয়ায় এ নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। তবে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ছয়শো যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে।এদিকে, উথুলী সংযোগ সড়ক এলাকায় তিনশো সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাক পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে। এর ফলে ঘাট এলাকায় আগত এসব যানবাহনের যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের ভোগান্তি বেড়েছে।

ঘটে অপেক্ষারত গোল্ডেন লাইন পরিবহনের যাত্রী সুকতার মিয়া বলেন, ‘রাত ১টা থেকে ঘাট এলাকায় আছি। ঘন কুয়াশার কারনে ফেরি বন্ধ থাকায় পার হতে পারিনি। এতো লম্বা সময় গাড়িতে বসে থেকে নাজুক অবস্থা এখন।’

খুলনাগামী যাত্রী তসলিমা আক্তার বলেন, ‘ঘাট এলাকায় পর্যাপ্ত টয়লেটের ব্যবস্থা নেই। ফলে নারী যাত্রীরা বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন।’

তকবির হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘তিনদিনের ছুটিতে বাড়ি যাচ্ছি। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় সকাল ১০টা পর্যন্ত ১১ ঘণ্টা যাবত বসে আছি। এখনো বাস ফেরিতে উঠতে পারেনি। কখন বাস ফেরিতে উঠবে, কখন নৌরুট পার হবো আর কখন বাড়ি যাবো। তিন ছুটির একদিন তো পাটুরিয়া ঘাটেই শেষ।’

বিল্লাল হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘শীতের মৌসুমে কুয়াশা হবে এটাই স্বাভাবিক। ঘাট কর্তৃপক্ষের যথাযথ পদক্ষেপ না থাকায় আমাদের ভোগান্তি বাড়ছে।’

যশোরগামী ট্রাক চালক ইকবাল হোসেন বলেন, ‘এমনিতেই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরিবহন বাস ও ছোট গাড়ি আগে পার করা হয়। ফেরি বন্ধ থাকায় যানবাহনের সারি দীর্ঘ হচ্ছে। ফেরি পারাপার চালু হলেও সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাকগুলো পরে পার করা হবে। এতে করে ট্রাক চালকদের আরও ভোগান্তি বাড়বে।’

পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) আশীষ স্যানাল জানান, ঘাট এলাকায় যানবাহনের বাড়তি চাপ এড়াতে ৭ কিলোমিটার আগে উথুলী সংযোগ সড়কে সাধারণ পণ্যবাহী ট্রাক দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ কমলে সিরিয়াল অনুযায়ী এসব ট্রাক ছাড়া হবে। উথুলী সংযোগ সড়ক থেকে আরিচা ঘাট পর্যন্ত তিনশোর মতো ট্রাক পাটুরিয়া ঘাটে প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে বলেও জানান তিনি।

বাংলাদেশ নৌ-পরিবহন করপোরেশন ( বিআইডব্লিটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক ( বাণিজ্য) মো. সালাম জানান, ঘন কুয়াশায় মার্কি বাতির অস্পষ্টতার কারণে পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু হলেও পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ছয়শো যানবাহন নৌরুট পারের অপেক্ষায় রয়েছে। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির চাপ কমে যাবে।