ঢাকা ০৭:৩১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভোক্তা অধিকার সভায় আপ্যায়নে মেয়াদোত্তীর্ণ বিস্কুট

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ১১:০৭:১৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২০ ১৬৬ বার পড়া হয়েছে

৩০ ডিসেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

মঙ্গলবার ছিল ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ দিবস। এটি পালন উপলক্ষে ময়মনসিংহের নান্দাইলে অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন করা নিয়ে এক সভার আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিতের আপ্যায়ন করা হয় অলিম্পিক কম্পানির লেক্সাস বিস্কুট দিয়ে। যা খাওয়ার সময় ধরা পড়ে গত প্রায় ৮ মাস আগেই বিস্কুটের মেয়াদ চলে গেছে। এ অবস্থায় সভা শেষ না করেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দুই দোকানে গিয়ে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে। যা নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ সম্পর্কে অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন করা নিয়ে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. এরশাদ উদ্দিন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রোকন উদ্দিন আহমেদ ও একাডেমিক সুপারভাইজার আনোয়ার হোসেনসহ অনেকেই।

সভা চলাকালীন স্বল্পসংখ্যক অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয় লেক্সাস বিস্কুট দিয়ে। বিস্কুট খেতে খেতে আলোচনা চলছিল।

সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রেস ক্লাব নান্দাইলের সাধারন সম্পাদক শামছ ই তাবরীজ রায়হান। তিনি বলেন, হঠাৎ একজন বিস্কুটের প্যাকেটে দেখতে পান এর মেয়াদ আট মাস আগেই অতিক্রান্ত হয়ে গেছে। অথচ মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য দোকানে রাখার অভিযোগে গত ২৩ ডিসেম্বর একাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শাহ আলম। সভায় অনেকে ওই বিস্কুট খেয়ে ফেলেন।

বিষয়টি নিয়ে সভায় কানাঘুষা শুরু হলে লেক্সাস বিস্কুট সরবরাহকারীকে ডেকে আনা হয়। ওই সরবরাহকারী সভায় জানান, তিনি একা বিস্কুট দেননি। পাশের দোকান থেকে প্যাকেট এনে বিস্কুট সরবরাহ করেছেন। পরে দুটি দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত পরিচালনা করেন ইউএনও মো. এরশাদ উদ্দিন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

ভোক্তা অধিকার সভায় আপ্যায়নে মেয়াদোত্তীর্ণ বিস্কুট

আপডেট সময় : ১১:০৭:১৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২০

৩০ ডিসেম্বর ২০২০, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

মঙ্গলবার ছিল ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ দিবস। এটি পালন উপলক্ষে ময়মনসিংহের নান্দাইলে অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন করা নিয়ে এক সভার আয়োজন করা হয়। এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিতের আপ্যায়ন করা হয় অলিম্পিক কম্পানির লেক্সাস বিস্কুট দিয়ে। যা খাওয়ার সময় ধরা পড়ে গত প্রায় ৮ মাস আগেই বিস্কুটের মেয়াদ চলে গেছে। এ অবস্থায় সভা শেষ না করেই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দুই দোকানে গিয়ে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে। যা নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ সম্পর্কে অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন করা নিয়ে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. এরশাদ উদ্দিন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রোকন উদ্দিন আহমেদ ও একাডেমিক সুপারভাইজার আনোয়ার হোসেনসহ অনেকেই।

সভা চলাকালীন স্বল্পসংখ্যক অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয় লেক্সাস বিস্কুট দিয়ে। বিস্কুট খেতে খেতে আলোচনা চলছিল।

সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রেস ক্লাব নান্দাইলের সাধারন সম্পাদক শামছ ই তাবরীজ রায়হান। তিনি বলেন, হঠাৎ একজন বিস্কুটের প্যাকেটে দেখতে পান এর মেয়াদ আট মাস আগেই অতিক্রান্ত হয়ে গেছে। অথচ মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য দোকানে রাখার অভিযোগে গত ২৩ ডিসেম্বর একাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শাহ আলম। সভায় অনেকে ওই বিস্কুট খেয়ে ফেলেন।

বিষয়টি নিয়ে সভায় কানাঘুষা শুরু হলে লেক্সাস বিস্কুট সরবরাহকারীকে ডেকে আনা হয়। ওই সরবরাহকারী সভায় জানান, তিনি একা বিস্কুট দেননি। পাশের দোকান থেকে প্যাকেট এনে বিস্কুট সরবরাহ করেছেন। পরে দুটি দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদালত পরিচালনা করেন ইউএনও মো. এরশাদ উদ্দিন।