ঢাকা ০৩:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুন্দরবনে হরিণ শিকারের ফাঁদ ও কীটনাশকসহ চোরা শিকারি আটক

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ১০:৪৪:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ জুলাই ২০২১ ১৫০ বার পড়া হয়েছে

০৫ জুলাই ২০২১, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের বুড়বুড়িয়া এলাকা থেকে হরিণ শিকারের বিপুল ফাঁদ ও কীটনাশকসহ এক চোরা শিকারিকে আটক করেছে বন বিভাগ। সোমবার (৫ জুলাই) ভোরের দিকে বনের বুড়বুড়িয়া এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক মো. সাজ্জাদ ব্যাপারী (২৮) মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের বাঁশতলা গ্রামের বাসিন্দা।

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের (মোংলা) স্টেশন কর্মকর্তা মো. ওবায়দুল রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার ভোরের দিকে বনের বুড়বুড়িয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে চোরা শিকারি মো. সাজ্জাদ ব্যাপারীকে হাতেনাতে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে হরিণ শিকারের ৫০০ গজ ফাঁদের রশি, তিন বোতল কীটনাশক ও ১০ কেজি বিষ মেশানো বিভিন্ন প্রজাতির সাদা মাছ।

বন কর্মকর্তা ওবায়দুল বলেন, ‘বনের ভেতরে হরিণ শিকারের জন্য ফাঁদ পেতে রেখে খালে বিষ (কীটনাশক) দিয়ে মাছ ধরছিলেন সাজ্জাদ। তার বিরুদ্ধে বন আইনে মামলার পর আজ দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।’

ওই বন কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘সাজ্জাদ এর আগেও একাধিক বন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি ছিলেন। বন মামলায় ওয়ারেন্ট থাকায় তিন দীর্ঘদিন পলাতক থেকে এবং প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বনের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

সুন্দরবনে হরিণ শিকারের ফাঁদ ও কীটনাশকসহ চোরা শিকারি আটক

আপডেট সময় : ১০:৪৪:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ জুলাই ২০২১

০৫ জুলাই ২০২১, আজকের মেঘনা. কম, ডেস্ক রিপোর্টঃ

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের বুড়বুড়িয়া এলাকা থেকে হরিণ শিকারের বিপুল ফাঁদ ও কীটনাশকসহ এক চোরা শিকারিকে আটক করেছে বন বিভাগ। সোমবার (৫ জুলাই) ভোরের দিকে বনের বুড়বুড়িয়া এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক মো. সাজ্জাদ ব্যাপারী (২৮) মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের বাঁশতলা গ্রামের বাসিন্দা।

পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের (মোংলা) স্টেশন কর্মকর্তা মো. ওবায়দুল রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার ভোরের দিকে বনের বুড়বুড়িয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে চোরা শিকারি মো. সাজ্জাদ ব্যাপারীকে হাতেনাতে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে হরিণ শিকারের ৫০০ গজ ফাঁদের রশি, তিন বোতল কীটনাশক ও ১০ কেজি বিষ মেশানো বিভিন্ন প্রজাতির সাদা মাছ।

বন কর্মকর্তা ওবায়দুল বলেন, ‘বনের ভেতরে হরিণ শিকারের জন্য ফাঁদ পেতে রেখে খালে বিষ (কীটনাশক) দিয়ে মাছ ধরছিলেন সাজ্জাদ। তার বিরুদ্ধে বন আইনে মামলার পর আজ দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।’

ওই বন কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘সাজ্জাদ এর আগেও একাধিক বন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি ছিলেন। বন মামলায় ওয়ারেন্ট থাকায় তিন দীর্ঘদিন পলাতক থেকে এবং প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বনের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিলেন।