ঢাকা ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বরাদ্দের সুষম বণ্টন করতে চায় প্রার্থীরা 

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৯:৫৫:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৬৫ বার পড়া হয়েছে
৪ অক্টোবর ২০২২ইং,
আজকের মেঘনা ডটকম,
মোঃ মাহমুদুল হাসান বিপ্লব সিকদার।।
আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচন। কুমিল্লা -১ ওয়ার্ড (মেঘনা উপজেলা) ৮ টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১০৭ জন।   ৪ প্রার্থীর মধ্যে তিনজনই বরাদ্দের সুষম বণ্টন করতে চায়। গত ২৩ আগস্ট নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় ১৫ সেপ্টেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ ২৬ সেপ্টেম্বর।জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকরা এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন। মেঘনা উপজেলায় চার প্রার্থী প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। মো: কাইয়ুম হোসাইন পেয়েছেন তালা প্রতীক,  এমরান হোসেন আকাশ পেয়েছেন হাতী প্রতীক, মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ পেয়েছেন টিউবওয়েল প্রতীক,  আবুল কালাম পেয়েছেন বৈদ্যুতিক পাখা। ৪ প্রার্থীর মধ্যে তিনজন রাজনীতির সাথে জড়িত একজন বেসরকারি কোম্পানীতে কর্মরত। এমরান  হোসেন  সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, মো: কাইয়ুম হোসাইন শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের উপজেলা সভাপতি। এদিকে মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ  ছাত্রদলের ইউনিয়ন থেকে থানার শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন বর্তমানে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন। তফসিল ঘোষণার পর পর প্রার্থীদের কৌশল গত গ্রুপিং লবিং শুরু হয়। প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও মাঠে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন বিভিন্ন কৌশলে। সরকারি দলের দুই প্রার্থীকে দেখা গেছে ভোটারদের পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ ও প্রচারণা চালাচ্ছে দেদারসে। অন্যদিকে আবুল কালাম  বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীক নিয়ে, মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে  তেমন সরব না হলেও গোপনে বিভিন্ন কৌশল নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছে।  দিন যত ঘনিয়ে আসছে মাঠ তত উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। অবৈধ টাকার ব্যবহারের আশংকা করে ফেসবুকে এলাকার সচেতন মহল পোস্ট দিতে দেখা গেছে। তালা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ কাইয়ুম হোসাইনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন বিগত দিনে জেলা পরিষদের সুষম বণ্টন হয়নি। আমি নির্বাচিত হলে সকল ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে আলোচনা করে প্রতিটি এলাকায়  বরাদ্দের সুষম বণ্টন করবো পাশাপাশি উপজেলাকে দূর্নীতি মুক্ত করে ছাড়বো। হাতী প্রতীকের প্রার্থী এমরান হোসেন আকাশ বলেন আমি মেঘনা বাসীর সেবা করার জন্য নির্বাচনে এসেছি দীর্ঘদিন ছাত্ররাজনীতি থেকে শুরু করে এখনো করছি আমি যদি নির্বাচিত হই সরকারি বরাদ্দের সুষম বণ্টন করবো।টিউবওয়েল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আকিল মাহমুদ বলেন আমি ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে মেঘনা বাসীর জন্য কিছু করার উদ্যেশ্য নিয়ে নির্বাচনে এসেছি কিভাবে বরাদ্দ আনতে হয় আমি মনে করি আমার সে বিষয়ে যথেষ্ট ধারণা আছে আমি সেই বরাদ্দ সুষম বণ্টন করতে অঙ্গিকারবদ্ধ। এই সরকারের অধীনে বিএনপি কোন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেনা বলেছে আপনি বিএনপির একজন নেতা হয়ে নির্বাচনে এসেছেন কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি স্পষ্ট বলছি নির্বাচনে আমার  ব্যক্তিগত ইচ্ছায় এসেছি। দলের কারো কথায় না, এখন দল কিভাবে নিবে দলের ব্যাপার। এদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মো: মোশাররফ হোসেন কে আকিল মাহমুদ এর নির্বাচন বিষয় নিয়ে সাংগঠনিক অবস্থা জানার জন্য একাধিক বার মুঠোফোনে ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি। বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকের প্রার্থীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। লুটের চর ইউনিয়ন পরিষদের কান্দার গাও এলাকার ওয়ার্ড সদস্য সোহরাব হোসেনের সাথে প্রার্থীদের সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা শিক্ষিত, সৎ, ও বরাদ্দের সুষম বণ্টন যে করবে তাকেই ভোট দিব। চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের টিটির এলাকার ওয়ার্ড সদস্য আব্দুর রহিম বলেন জনগণের প্রতি যে খেয়াল রাখবেন এবং বরাদ্দ লুটপাট করবেনা, সুষম বণ্টন করবে আমি তাকেই ভোট দিব কারন আমরা সব প্রার্থীকেই চিনি কে কেমন এবং কে কার লোক। গোবিন্দ পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাঈনুদ্দিন মুন্সি তপন বলেন প্রার্থীরা যোগাযোগ করছে আমরা শিক্ষিত, সৎ, সামাজিক প্রার্থীকেই ভোট দিব। উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার বলেন আমাদেরকে নির্বাচক হিসেবে ভোটার করা হয়েছে। আমার পরিস্কার বার্তা যিনি নির্বাচিত হবেন তিনি জেলায় মেঘনা বাসীর প্রতিনিধিত্ব করবেন এটা বিশাল দায়িত্ব। উনার উপর নির্ভর আমাদের সভ্যতা, সংস্কৃতি সহ অনেক কিছু তাই সৎ, সু শিক্ষিত, সামাজিক ব্যক্তিকেই যেন সবাই ভোট দেই। উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ভোট কেন্দ্র আইনশৃঙ্খলা ও সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া আক্তারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন এখনো পর্যন্ত কোন সমস্যা নেই তবে এখনো অনেক দেরি। কোন নির্দেশনা আমাদের কাছে নেই। যেই ভাবে সরকারি নির্দেশনা থাকবে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে আমরা তাই করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

ট্যাগস :

বরাদ্দের সুষম বণ্টন করতে চায় প্রার্থীরা 

আপডেট সময় : ০৯:৫৫:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২
৪ অক্টোবর ২০২২ইং,
আজকের মেঘনা ডটকম,
মোঃ মাহমুদুল হাসান বিপ্লব সিকদার।।
আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে কুমিল্লা জেলা পরিষদ নির্বাচন। কুমিল্লা -১ ওয়ার্ড (মেঘনা উপজেলা) ৮ টি ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা ১০৭ জন।   ৪ প্রার্থীর মধ্যে তিনজনই বরাদ্দের সুষম বণ্টন করতে চায়। গত ২৩ আগস্ট নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় ১৫ সেপ্টেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই ১৮ সেপ্টেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর এবং প্রতীক বরাদ্দ ২৬ সেপ্টেম্বর।জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকরা এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন। মেঘনা উপজেলায় চার প্রার্থী প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। মো: কাইয়ুম হোসাইন পেয়েছেন তালা প্রতীক,  এমরান হোসেন আকাশ পেয়েছেন হাতী প্রতীক, মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ পেয়েছেন টিউবওয়েল প্রতীক,  আবুল কালাম পেয়েছেন বৈদ্যুতিক পাখা। ৪ প্রার্থীর মধ্যে তিনজন রাজনীতির সাথে জড়িত একজন বেসরকারি কোম্পানীতে কর্মরত। এমরান  হোসেন  সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, মো: কাইয়ুম হোসাইন শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের উপজেলা সভাপতি। এদিকে মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ  ছাত্রদলের ইউনিয়ন থেকে থানার শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন বর্তমানে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন। তফসিল ঘোষণার পর পর প্রার্থীদের কৌশল গত গ্রুপিং লবিং শুরু হয়। প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও মাঠে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন বিভিন্ন কৌশলে। সরকারি দলের দুই প্রার্থীকে দেখা গেছে ভোটারদের পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাৎ ও প্রচারণা চালাচ্ছে দেদারসে। অন্যদিকে আবুল কালাম  বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীক নিয়ে, মোহাম্মদ  আকিল মাহমুদ টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে  তেমন সরব না হলেও গোপনে বিভিন্ন কৌশল নিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছে।  দিন যত ঘনিয়ে আসছে মাঠ তত উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। অবৈধ টাকার ব্যবহারের আশংকা করে ফেসবুকে এলাকার সচেতন মহল পোস্ট দিতে দেখা গেছে। তালা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ কাইয়ুম হোসাইনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন বিগত দিনে জেলা পরিষদের সুষম বণ্টন হয়নি। আমি নির্বাচিত হলে সকল ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে আলোচনা করে প্রতিটি এলাকায়  বরাদ্দের সুষম বণ্টন করবো পাশাপাশি উপজেলাকে দূর্নীতি মুক্ত করে ছাড়বো। হাতী প্রতীকের প্রার্থী এমরান হোসেন আকাশ বলেন আমি মেঘনা বাসীর সেবা করার জন্য নির্বাচনে এসেছি দীর্ঘদিন ছাত্ররাজনীতি থেকে শুরু করে এখনো করছি আমি যদি নির্বাচিত হই সরকারি বরাদ্দের সুষম বণ্টন করবো।টিউবওয়েল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আকিল মাহমুদ বলেন আমি ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তে মেঘনা বাসীর জন্য কিছু করার উদ্যেশ্য নিয়ে নির্বাচনে এসেছি কিভাবে বরাদ্দ আনতে হয় আমি মনে করি আমার সে বিষয়ে যথেষ্ট ধারণা আছে আমি সেই বরাদ্দ সুষম বণ্টন করতে অঙ্গিকারবদ্ধ। এই সরকারের অধীনে বিএনপি কোন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেনা বলেছে আপনি বিএনপির একজন নেতা হয়ে নির্বাচনে এসেছেন কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি স্পষ্ট বলছি নির্বাচনে আমার  ব্যক্তিগত ইচ্ছায় এসেছি। দলের কারো কথায় না, এখন দল কিভাবে নিবে দলের ব্যাপার। এদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মো: মোশাররফ হোসেন কে আকিল মাহমুদ এর নির্বাচন বিষয় নিয়ে সাংগঠনিক অবস্থা জানার জন্য একাধিক বার মুঠোফোনে ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি। বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকের প্রার্থীর সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। লুটের চর ইউনিয়ন পরিষদের কান্দার গাও এলাকার ওয়ার্ড সদস্য সোহরাব হোসেনের সাথে প্রার্থীদের সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন আমরা শিক্ষিত, সৎ, ও বরাদ্দের সুষম বণ্টন যে করবে তাকেই ভোট দিব। চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের টিটির এলাকার ওয়ার্ড সদস্য আব্দুর রহিম বলেন জনগণের প্রতি যে খেয়াল রাখবেন এবং বরাদ্দ লুটপাট করবেনা, সুষম বণ্টন করবে আমি তাকেই ভোট দিব কারন আমরা সব প্রার্থীকেই চিনি কে কেমন এবং কে কার লোক। গোবিন্দ পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাঈনুদ্দিন মুন্সি তপন বলেন প্রার্থীরা যোগাযোগ করছে আমরা শিক্ষিত, সৎ, সামাজিক প্রার্থীকেই ভোট দিব। উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ মিয়া রতন শিকদার বলেন আমাদেরকে নির্বাচক হিসেবে ভোটার করা হয়েছে। আমার পরিস্কার বার্তা যিনি নির্বাচিত হবেন তিনি জেলায় মেঘনা বাসীর প্রতিনিধিত্ব করবেন এটা বিশাল দায়িত্ব। উনার উপর নির্ভর আমাদের সভ্যতা, সংস্কৃতি সহ অনেক কিছু তাই সৎ, সু শিক্ষিত, সামাজিক ব্যক্তিকেই যেন সবাই ভোট দেই। উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ভোট কেন্দ্র আইনশৃঙ্খলা ও সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া আক্তারের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন এখনো পর্যন্ত কোন সমস্যা নেই তবে এখনো অনেক দেরি। কোন নির্দেশনা আমাদের কাছে নেই। যেই ভাবে সরকারি নির্দেশনা থাকবে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে আমরা তাই করবো।